নেট ইমপ্যাক্ট এর দ্বিতীয় সেশন আয়োজন করছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

উদ্দোক্তা তৈরির মূল লক্ষ্য হিসেবে নেট ইমপ্যাক্ট'র দ্বিতীয় সেশনের আয়োজন করছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি

39

দেশে আন্তর্জাতিক সংস্থা নেট ইমপ্যাক্ট’র প্রথম ইভেন্ট সাফল্যের সাথে আয়োজন করার পর দ্বিতীয় ইভেন্ট আয়োজন করতে চলেছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি নেট ইম্প্যাক্ট।

নেট ইমপ্যাক্ট মূলত একটি অলাভজনক সংস্থা। এখানে উদ্যোক্তা তৈরি এবং তাদেরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে যোগ্য জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়। বিশ্বের প্রায়ই অধিকাংশ দেশেই এই সংস্থার শাখা রয়েছে। প্রতিটি শাখায় আবার কিছু অধ্যায় রয়েছে৷ প্রায়ই ৪০০শ’র বেশি অধ্যায় রয়েছে পুরো বিশ্বে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য দারুণ একটি মঞ্চ এটি। ছাত্রছাত্রীরা এই প্ল্যাটফর্মে কাজ করার ফলে পাচ্ছেন অনেক সুযোগ সুবিধা। একই সঙ্গে তারা নিজেদের প্রতিভাকে বিকশিত করে সফল উদ্যোক্তা হতে পারছেন। বিশ্বজুড়ে বড় নেটওয়ার্ক তৈরি করতে পারছেন। সেই দিক থেকে চিন্তা করেই ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এই সংস্থার একটি শাখা চালু করেছে।

শুক্রবার (২২ মে) দ্বিতীয় ইভেন্ট আয়োজন করতে যাচ্ছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির নেট ইমপ্যাক্ট শাখা। এটিও অনলাইন সেশন হবে। এই সেশনেও প্রায় ২০০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করার জন্য রেজিষ্ট্রেশন করছে, রেজিষ্ট্রেশন প্রক্রিয়া চলছে।
দ্বিতীয় সেশনে স্পিকার হিসেবে থাকছেন শারমিন প্রীতি (প্রতিষ্ঠাতা এবং চিত্রশিল্পী, প্রীতি’স আর্ট), রাফিদ চৌধুরী (সহ প্রতিষ্ঠাতা এবং পন্য পরিচালনার প্রধান, তরুন), ফাহিম মোর্শেদ (সহ প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ,সিম্বল)।
ইভেন্টটি বিশেষত তাদের জন্য যারা তাদের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের সর্বোত্তম ব্যবহার করতে, নেতা এবং পরিবর্তনবিদ হিসাবে আরও ভালো কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি করতে চায়। বক্তারা মূলত এর উপরেই বক্তব্য রাখবেন।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে এই সংস্থার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সাখাওয়াত উল্লাহ বাঁধন, সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সফিউল বাশার সাব্বির। ক্যাম্পাস ডিরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন নাহিদুল ইসলাম।
সংস্থাটির সভাপতি সাখাওয়াত উল্লাহ বাঁধন বলেন, আমরা চাচ্ছি ভবিষ্যতে বাংলাদেশসহ বাংলাদেশের বাইরের বেশ কিছু পরিচিত মুখ, জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব এবং সফল উদ্যোক্তাদেরকে এনে অনেক ইভেন্ট করতে। এতে করে সকল ছাত্রছাত্রীরা পড়াশুনা চলাকালীন তাদের নিজেদেরকে যোগ্য করে তুলতে পারবে এবং এক সময় বাংলাদেশের বেকারত্ব দূর করতে সক্ষম হবে। সহ-সভাপতি সফিউল বাশার সাব্বির বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য উদ্যোক্তা তৈরি করা এবং তাদেরকে যোগ্য করে তোলা। সেজন্য অনেক চ্যালেঞ্জিং কাজের মাধ্যমে তাদেরকে পৌঁছে দিতে চাই সফলতার মনিকোঠায় এবং ক্যাম্পাস ডিরেক্টর নাহিদুল ইসলাম বলেন, নেট ইম্প্যাক্ট থেকেই ভবিষ্যৎ সফল উদ্যোক্তা এবং লিডার তৈরী হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here