ইলিশ

48

ইলিশ

আল ফিতর আহমেদ সিয়াম

দরবারে এলেন রাজা,
এসেই বলেন খেতে আমার,
ইচ্ছে বড়
ইলিশ মাছের ভাজা।

মন্ত্রী মশাই ডাক পাঠালেন,
আছো কী এমন ছেলে?
যে রাজাকে দেবে খুজে,
পাকা হাতের জেলে।

হঠাৎ করে রাজদরবারে,
এলো যে এক লোক,
কাজ কাম ফেলে সবার,
তারই দিকে চোখ।

রাজা মশাই বলল তাকে,
কে তুমি ছেলে?
ছেলে তখন উত্তর দিলো,
আমিই হলাম জেলে।

রাজা তখন বললো তাকে,
মাছ ধরতে পারো?
ইলিশ মাছ দিলে ধরে,
পাবে টাকা বারো।

জেলে তখন বলল হেসে,
এতো বাম হাতের খেলা।
আপনি বল্লে দেব এনে,
ইলিশ মাছের মেলা।

রাজা তখন বলল তাকে,
বাপু তুমি পাকা।
ইলিশ টাকে দিলে ধরে,
পাবে হাজার টাকা।

তবে তুমি যদি আসো,
খালি হাতে ফিরে।
হৃদপিণ্ডটা ছিনিয়ে নেব,
বক্ষখানি চিরে।

জেলে বলল মাথা নত করে,
জো হুকুম মহারাজ।
এক্ষুনি যাচ্ছি ইলিশ ধরতে,
ফিরবোও আমি আজ।

জেলে তখন খুশি হয়ে,
ধরতে গেলো ইলিশ।
ইলিশ ধরে না দিলে,
রাজা করবেন পালিশ।

জেলে তখন মাঝ নদীতে ,
ফেলতে গেল জাল।
চমকে তার চোখ দুটো,
হয়ে গেল লাল।

দেখল তার শখের জালে,
লম্বা রাস্তা কাটা।
ইলিশ ধরে না দিলে রাজা,
লাগাবে মরিচ বাটা।

কাটা সেই রাস্তা দিয়ে,
ইলিশ চলে গেল।
জেলের কপালে সেই আসন্ন,
শনি ঘনিয়ে এলো।

জেলে তখন সেই অবস্থায়,
গেলো যে দরবারে।
রাজা মশাই সত্যি জানলে,
মারবেন একেবারে।

রাজা মশাই বলল জেলেকে
ইলিশ মাছ কই?
আমি যে সেই কখন থেকে,
পথটা চেয়ে রই।

আনবে তুমি নদীর ইলিশ,
দেখতে তাজা তাজা।
মন ভরে আজ খাবো সকলে,
ইলিশ মাছের ভাজা।

জেলে তখন কেঁদে বলল,
আমার জাল কাটা।
ফাঁকা পেয়ে পালিয়ে গেছে,
আপনার ইলিশ বেটা।

রাজা মশাই সব শুনে,
চোখটি করে লাল।
এতো জেন মাহারাজ নয়,
লাল মরিচের ঝাল।

রাজা মশাই বলল জেলেকে,
মারিয়া করিব খুন।
দেহখানি কাটিয়া সেই কাটা গায়ে,
লাগিয়া দেব নুন।

জেলে তখন হাত জোর করে,
ক্ষমা করে দিন।
প্রান খানি ভিক্ষার দিয়ে,
শাস্তি তুলে নিন।

রাজা ছিল খুব দয়ালু,
ক্ষমা করলো তাকে।
জেলে তখন মনের খুশি,
কোথায় জমা রাখে।

জেলে মশাই গেল বেঁচে,
মস্ত বিপদ থেকে,
নতুন ভাবে পেল জীবন,
আগের কথা রেখে।।