পৃথিবীর বুকে যখন এলিয়েনদের বাসস্থান!

30

ফুটবল প্রেমীদের কাছে ডেনমার্ক একটি অতি পরিচিত নাম। রেড এন্ড হোয়াইট এর তারকাসমৃদ্ধ ফুটবল দল আছে ডেনমার্কের ।

ডেনমার্ক

ডেনমার্ক উত্তর-পশ্চিম ইউরোপের একটি রাষ্ট্র। ভাইকিংয়েরা ১,১০০ বছর আগে ডেনীয় রাজ্য প্রতিষ্ঠা করে। আজ আমরা কথা বলতে যাচ্ছি ডেনমার্কের  ব্র‍্যান্ডবি গার্ডেন সিটি নিয়ে। ব্র‍্যান্ডবি গার্ডেন সিটি বা ব্রডবি গার্ডেন সিটি ( brondby garden city)। 

ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনহেগেন এর একদম বাইরেই শহরটি অবস্থিত। বিশ্বে অনেকগুলি নগর  রয়েছে যা এত অনন্যভাবে পরিকল্পনা করা  যা লোককে নির্বাক করে ফেলে। এরকম মনোমুগ্ধকর দর্শনীয় স্থানগুলির মধ্যে একটি হলো ব্র্যান্ডবি হ্যাভবি বা ব্র্যান্ডবি গার্ডেন সিটি। এই ব্র‍্যান্ডবি গার্ডেন সিটি এমন কমিউনিটি গার্ডেন যা  এর বৃত্তাকার বিন্যাসের জন্য পরিচিত। ব্র‍্যান্ডবি গার্ডেন সিটি শহরের জনকোলাহল পূর্ণ জীবনধারা থেকে তাদের অধিবাসীদের প্রকৃতি মাতার আরো কাছাকাছি অবস্থান করার সুযোগ দেয়। এখানে তারা তাদের ফসল,শাকসবজি নিজেরাই উৎপাদন ও সরবরাহ করে। যাদের বাগান করবার শখ আছে তারাও এই গার্ডেন সিটিতে তাদের মন বাসনা পূরণ করবার সুযোগ পায়। 

ব্রন্ডবি গার্ডেন সিটি

ড্রোন কিংবা স্যাটেলাইট ইমেজ দেখে মনেই হতে পারে এইটি পৃথিবীর বাইরে কোনো গ্রহের “এলিয়েনদের বাসস্থান”। এর গোল গোল চাকতির মতো কমিউনিটি গার্ডেন গুলো দেখতে অবিকল হলিউড সায়েন্স ফিকশনাল ছবিতে দেখানো এলিয়েন হাবের মতোই। তাই এই শহরের ছবি গুলো দেখলে রীতিমতো চমকেই উঠবেন আপনি। 

১৯৬৪ সালে ব্র‍্যান্ডবি পৌরসভা এই গার্ডেন সিটির জন্য স্থান সংস্থানের অনুমোদন দেয়। তখন থেকেই এই সিটির মনোমুগ্ধকর বৃত্তগুলোর উদয় শুরু  হয়।

 ব্র্যান্ডবি গার্ডেন  এই ধরণের স্থাপত্যকলা দুর্ঘটনাক্রমে নয়। মূলত এটি এমন ভাবে তৈরী করা হয়েছিলো যাতে যারা ব্র‍্যান্ডবি গার্ডেন সিটি বা হ্যাভিতে থাকতে আসবেন  তারা যেনো নিজেদের  মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক বাড়াতে পারে।

 এই শহরের অধিকাংশ বাড়ি ৫০ বর্গ মিটারের। এখানের অধিবাসীরা বছরের পহেলা এপ্রিল থেকে পহেলা অক্টোবর পর্যন্ত থাকতে পারেন। আপনি চাইলে এখানে বাড়ি ভাড়া নিতে পারেন। তবে জমি কিনতে চাইলে কিছু শর্ত আছে। সেক্ষেত্রে আপনার স্থায়ী নিবাস ঐ এলাকার ২০ কিলোমিটার এর ভিতরে হতে হবে। এই আধুনিক শহরের বাড়িগুলোতে রয়েছে আধুনিক পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, পানির ব্যবস্থা, মূল বিদ্যুৎ এর উপর হতে নির্ভরতা কমানোর জন্য রয়েছে সৌর বিদুৎ। 

লিখেছেন: মৈনাক কুমার