অনুষ্ঠিত হলো ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের অন ক্যাম্পাস প্রোগ্রাম

63

ফাইনাল রাউন্ড এর মধ্যে দিয়ে শেষ হল ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের অন ক্যাম্পাস প্রোগ্রাম।

মহানায়ক হও পৃথিবী বদলে দেওয়ার অগ্রযাএায় হোক না সেটা খাদ্যের মতো অত্যন্ত প্রয়োজনীয় মৌলিক চাহিদায়। পৃথিবীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ চাহিদার মধ্যে খাদ্যের চাহিদা অন্যতম। হ্যাঁ আর এ বছর খাদ্য নিয়েই হাল্ট প্রাইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে।

গত ২৭ নভেম্বর সেমিফাইনাল পর অসাধারণ প্রতিভার প্রশিক্ষক দ্বারা গ্রুমিং করার পর আজ ৪ ডিসেম্বর সংগঠিত হল ডব্লিউইউবি হাল্ট প্রাইজ এর অন ক্যাম্পাস প্রোগ্রাম এর ফাইনাল রাউন্ড।


একটু ভিন্ন আঙ্গিকে স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে প্রোগ্রাম শুরু করেন ডব্লিউইউবি হাল্ট প্রাইজ এর চিফ অফ স্টাফ নাজিম আহমেদ। এরপর হাল্ট প্রাইজ গ্লোবাল টিম এর এশিয়া রিজোনাল এসোসিয়েট ফাহিম শাহরিয়ার তিনি হাল্ট প্রাইজ সম্পর্কে তার আইডিয়া শেয়ার করেন এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন। এরপর আমাদের কমিউনিটি বিল্ডার ইকরার ইমতিয়াজ তিনি তাঁর বক্তব্যে অংশগ্রহণকারীদের স্বাগত জানান এবং বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন। এছাড়াও ডব্লিউইউবি হাল্ট প্রাইজ এর এডভাইসর প্যানেল ড. সেলিম স্যার উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত ছিলে অর্গানাইজিং কমিটির সকল সদস্যরা।
সম্মানিত বিজ্ঞ বিচারক হিসেবে ছিলেন ড.সেলিম ওয়ার্ল্ড স্কুল অব বিজনেস, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান স্যার চ্যায়ারম্যন ডিপার্টমেন্ট অব টেক্সটাইল ইন্জিনিয়ারিং এবং মোহাম্মদ সাদ গ্লোবাল ফাইনালিস্ট।ফাইনালে অংশগ্রহণ করেন পাঁচটি অসম্ভব মেধাবি একঝাঁক তরুন শিক্ষার্থী। যাদের মধ্যে টিম ভিসনারি, নিউট্রিমেন্ট হুইলার, ভিগ্যান ইরা, রেনেসেন্ট এবং টিম গ্রীন ভ্যালি।
গুড ফুড গুড হেল্থ, বায়োফ্লপ প্রোসেস, ভিগ্যান ফুড, এনসিওরিল নিউট্রিশন ফর অল এবং ট্রান্স রাইট আর হিউম্যান রাইট এর মত অসাধারণ কিছু আইডিয়া শেয়ার করেন অংশগ্রহণ কারী দলগুলো। তারা তাদের স্লাইড শেয়ার এবং তীক্ষ্ণ প্রতিভার অসম্ভব সুন্দর উপস্থাপনা এবং সেমিফাইনালের স্যারদের প্রশ্নত্তোর পর্বের মাধ্যমে তারা তাদের ২০৩০ সালের মধ্যে ১০ মিলিয়ন লোকের খাদ্যের অভাব পুরন সহ বিভিন্ন চ্যালেন্জ কে সামনে রেখে বক্তব্য উপস্থাপন করেন।তারা চেষ্টা করেন হাল্ট প্রাইজ এর মুল লক্ষ্যকে মাথায় রেখে খাদ্য নিয়ে বিভিন্ন মতামত উপস্থাপন করতে।

সবার ব্যাতিক্রমি ভিন্নধর্মী আইডিয়া পর্বের শেষে সমাপনী বক্তব্য রাখেন ডব্লিউইউবি এর চিফ অফ স্টাফ নাজিম আহমেদ। তিনি ডব্লিউইউবিতে হাল্ট প্রাইজ এর যাত্রা তুলে ধরেন।
এরপর সমাপনী বক্তব্য রাখেন মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান স্যার এবং মোহাম্মদ সাদ। তারা বিভিন্ন অনুপ্রেরণা মুলক এবং বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেন।
এরপর বিচারকরা তাদের ফলাফল ঘোষনা করেন।যার মধ্যে,
চ্যাম্পিয়ন হয় টিম “রেনেসেন্ট ”
প্রথম রানার্সআপ “ভিগ্যান ইরা”
এবং দ্বিত্বীয় রানার্সআপ হয় “নিউট্রিমেন হুইলার”
দীর্ঘ ৪ মাস অসম্ভব সুন্দর যাএা শেষে “Trans Right Are Human Rights”এর উপর ভিওি করে টিম রেনেসেন্ট হয় ডব্লিউইউবি হাল্ট প্রাইজ এর অন ক্যাম্পাস প্রোগ্রাম এর চ্যাম্পিয়ন।