মেডিনিবাস’র আয়োজনে প্রথমবারের মতো ” জাতীয় মেডি-কুইজ প্রতিযোগিতা”

আগামী ২১মে রাত ৯ টায় " মেডিনিবাস" প্রথমবারের মতো আয়োজন করতে যাচ্ছে "জাতীয় মেডি-কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২০" এর।।

197

বাংলাদেশের বিভিন্ন মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের দ্বারা সংগঠিত নব্য মেডিকেল কমিউনিটি “মেডিনিবাস” তাদের সহশিক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে প্রথমবারের মতো আয়োজন করতে যাচ্ছে “জাতীয় মেডি-কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২০”। এই অনলাইন প্রতিযোগিতাটি আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা করছে বাংলাদেশের স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ এর বিজ্ঞান ক্লাব তথা নিউট্রিনো এসিসি সায়েন্স ক্লাব। এই প্রতিযোগিতার মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হলো “জ্ঞানের আলোয় জাগবে বিশ্ব”।

আগামী ২১মে রাত ৯ টায় চিকিৎসা বিজ্ঞান সম্পর্কিত বিভিন্ন সাধারণ জ্ঞানের প্রশ্ন নিয়ে মাত্র ৩০ মিনিটের জন্য অনলাইনে প্রতিযোগিতাটি অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের যাবতীয় নিয়মাবলি ও লিংক পাওয়া যাবে মেডিনিবাসের অফিসিয়াল ফেইসবুক পেইজে।

এই অনলাইন মেডি-কুইজ প্রতিযোগিতায় মেডিকেল ও ডেন্টাল শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া যেকোনো শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করতে পারবে। উক্ত প্রতিযোগিতায় অ্যাক্সন (Axon) ও ডেনড্রাইট (Dendrite) নামক দুইটি বিভাগে থাকছে মোট ৫ টি পর্যায়। পর্যায় গুলো হলোঃ মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক, বিশ্ববিদ্যালয়, প্রি-ক্লিনিক্যাল ও ক্লিনিক্যাল। প্রতিটি পর্যায়ের জন্য ৩ টি করে এই প্রতিযোগিতার মোট পুরস্কার সংখ্যা ১৫ টি। এছাড়াও অংশগ্রহণকারী সকল শিক্ষার্থীদের জন্য থাকছে অনলাইন সনদপত্র।

জাতীয় মেডি-কুইজ প্রতিযোগিতা ২০২০ এর আহবায়ক ও মেডিনিবাসের প্রধান উদ্যোক্তা কাজিম ফাহিম আকাশ এ সম্পর্কে বলেন, “মেডিকেল ও মেডিকেল বহির্ভূত সর্বস্তরের শিক্ষার্থীদের নিয়ে এত বৃহৎ পর্যায়ের ‘চিকিৎসা বিজ্ঞান’ সম্পর্কিত কুইজ প্রতিযোগিতা এর আগে কখনো অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে আমার জানা নেই। আমি মনে করি এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে দেশের সকল পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের চিকিৎসা বিজ্ঞান সম্পর্কিত জ্ঞান বিকশিত হবে। পাশাপাশি মেডিকেল এবং নন মেডিকেল শিক্ষার্থীদের সর্বজনীন অংশগ্রহণের মাধ্যমে মেডিনিবাস এর অন্যতম স্বপ্ন “চিকিৎসক বান্ধব সমাজ” গঠনের প্রথম বীজ রোপিত হবে।

ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের মাত্র প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী হয়ে মেডিকেল সেক্টরে এত বড় প্রতিযোগিতার উদ্যোগ নেওয়ার সাহস বা অনুপ্রেরণা কি জিজ্ঞেস করলে কাজিম ফাহিম আকাশ বলেন, তার কলেজ জীবনের শিক্ষক এবং এই প্রতিযোগিতার সহযোগী সংগঠন নিউট্রিনো এসিসি সায়েন্স ক্লাবের মডারেটর ও পদার্থ বিজ্ঞানের সহযোগী অধ্যাপক মিজানুর রহমানের কথা। যার অনুপ্রেরণার ফলে উচ্চ মাধ্যমিক জীবন থেকেই ব্যতিক্রমধর্মী নানা জিনিস সফলভাবে আয়োজন করতে সক্ষম হন তিনি। উল্লেখ্য যে, তিনি নিউট্রিনো এসিসি সায়েন্স ক্লাবের সভাপতি পদেও দায়িত্বরত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here